সিলেটে বই উৎসবে বিদ্যালয়ে মুসল্লিদের হামলা, ভাংচুর

সিলেটের বন্দর বাজারে দুর্গাকুমার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে নতুন বই বিতরণ উৎসব চলাকালে হামলা চালিয়েছেন স্থানীয় মুসল্লিরা।

রোববার (১ জানুয়ারি) দুপুর পৌনে ২ টার দিকে এ হামলা চালানো হয়।

বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সেগুফতা কানিজ আক্তার জানান, রোববার বই উৎসব উপলক্ষ্যে বিদ্যালয়ে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছিলেন শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা। দুপুরে যোহরের আজান ও নামাজ উপলক্ষ্যে অনুষ্ঠানে বিরতি দেয়া হয়। কিন্তু তবুও নামাজের পরপরই মসজিদ থেকে বের হয়ে অর্ধশতাধিক মানুষ বিদ্যালয়ে হামলা চালান। তারা সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে ব্যবহৃত বাদ্যযন্ত্রসহ চেয়ার-টেবিল ও মঞ্চ ভাংচুর করেন। এতে পণ্ড হয়ে যায় বই উৎসব।বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক  জানান, রোববার বই উৎসব উপলক্ষ্যে বিদ্যালয়ে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছিলেন শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা। দুপুরে যোহরের আজান ও নামাজ উপলক্ষ্যে অনুষ্ঠানে বিরতি দেয়া হয়। কিন্তু তবুও নামাজের পরপরই মসজিদ থেকে বের হয়ে অর্ধশতাধিক মানুষ বিদ্যালয়ে হামলা চালান। তারা সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে ব্যবহৃত বাদ্যযন্ত্রসহ চেয়ার-টেবিল ও মঞ্চ ভাংচুর করেন। এতে পণ্ড হয়ে যায় বই উৎসব।

বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি মঞ্জুর আহমদ চৌধুরী জানান, বই উৎসবে প্রধান অতিথি ছিলেন সিলেটের সাবেক মেয়র বদর উদ্দিন আহমদ কামরান। তিনি বই উৎসব উদ্বোধন ও বই বিতরণ শেষে চলে যাওয়ার পর যোহরের আজানের পূর্বেই বন্ধ রাখা হয় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। পরে নামাজ শেষে আবারও অনুষ্টান শুরু হয়। এ সময় বন্দর বাজারস্থ কালেক্টরেট জামে মসজিদ থেকে বেরিয়ে এসে অনুষ্ঠানে হামলা চালান অন্তত ৫০-৬০ জন।

সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের উপ কমিশনার ফয়সাল মাহমুদ, সহকারি কমিশনার নুরুল হুদা আশরাফী ও কোতোয়ালী থানার ওসি সোহেল আহমদ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হলেও তারা গণমাধ্যমের সাথে কথা বলতে অস্বীকৃতি জানান।